গিয়াসের শোডাউনে মামুন-রোজেল উধাও

13
আবদুর রহিমঃ জেলা বিএনপির আহবায়ক এবং বিএনপি দলীয় সাবেক সাংসদ গিয়াসউদ্দিন এবং সদস্য সচিব গোলাম ফারুক  খোকন নেতৃত্বে প্রথম শোডাউনে ছিলনা বিএনপির সদ্য বিলুপ্ত আহবায়ক কমিটির সদস্য সচিব অধ্যাপক মামুন মাহমুদ এবং যুগ্ম আহবায়ক জাহিদ হাসান রোজেল সহ তাঁদের অনুসারিরা।
ছাত্রদল নেতা নয়ন হত্যাকান্ডের প্রতিবাদে মঙ্গলবার বিকেলে বিক্ষোভ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়।
বিগত আহবায়ক কমিটির দায়িত্ব পেয়ে অধ্যাপক মামুন এবং জাহিদ হাসান রোজেলের বিরুদ্ধে স্বেচ্ছাচারীতার অভিযোগ উঠেছে। দলের একটি পক্ষকে কোনঠাসা করে রেখেছিল এমন অভিযোগ দলের তৃনমূলের। গুঞ্জন রয়েছে, মামুন-রোজেলরাই বিগত সময়ে দলের একটি পক্ষকে দলীয় কর্মকান্ড থেকে নিরুৎসাহিত করেছিল। সভা মঞ্চের ডায়েস দখলে নিয়ে তাঁদের পছন্দের নেতাদের বক্তব্য দেয়ার সুযোগ করে দিতেন।
তবে বিএনপি দলীয় সাবেক সাংসদ গিয়াসের নেতৃত্বে প্রথম শোডাউনে মামুন-রোজেল গং উপস্থিত না থাকলেও বিক্ষোভ সমাবেশ ছিল নজরকাড়া। নেতাকর্মীদের স্বতঃস্ফূর্ত অংশগ্রহণে বিক্ষোভ কর্মসূচি সমাবেশে রূপ নেয়। তবে দলীয় কর্মসূচিতে না থাকায় অধ্যাপক মামুন মাহমুদ এবং জাহিদ হাসান রোজেলের কঠোর সমালোচনা করেন দলের সাধারণ নেতাকর্মীরা। তাঁদের মতে, বর্তমান সময়ে দলের মধ্যে বিভেদ, বিভাজন কাম্য নয়। এই মূহুর্তে সবাইকে ঐক্যবদ্ধ হয়ে সরকার বিরোধী আন্দোলন বেগবান করা প্রয়োজন।
জেলা বিএনপির সদস্য সচিব থাকা অবস্থায় নিজের নিয়ন্ত্রণে রেখে বিএনপির রাজনীতি এককভাবে পরিচালনার চেষ্টা করেছেন। এসব করতে গিয়ে নানা ভাবে সমালোচিত হয়েছে এই নেতা। পাশে থেকে ইন্ধন জুগিয়ে বিএনপির বিশাল একটি পক্ষকে মাইনাসের চেষ্টা করার অভিযোগ রয়েছে জাহিদ হাসান রোজেল,একরামুল করিম মামুনসহ বেশ কয়েকজন নেতার বিরুদ্ধে। কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দ এসব অনিয়মিত, অভিযোগগুলো আমলে নিয়ে রবি-মামুমের কমিটি বিলুপ্ত করে গিয়াসউদ্দিনকে আহবায়ক এবং গোলাম ফারুক খোকনকে সদস্য সচিব করে ৯ সদস্যের কমিটির অনুমোদন করায় মামুন-রোজলরা কোনঠাসা হয়ে পরেছে, রাজনৈতিক চাপে পরে চুপসে গেছে তাঁদের অনুসারিরাও।
৯ সদস্যের এ কমিটিতে আহ্বায়ক করা হয়েছে নারায়ণগঞ্জ-৪ (ফতুল্লা-সিদ্ধিরগঞ্জ) আসনের বিএনপি দলীয় সাবেক সংসদ সদস্য মুহাম্মদ গিয়াস উদ্দিনকে। সদস্যসচিব হয়েছেন জেলা যুবদলের সাবেক আহ্বায়ক গোলাম ফারুক। গিয়াস উদ্দিন বিএনপির কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য। ১০ নভেম্বর বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের স্বাক্ষরিত এই আহ্বায়ক কমিটিকে অনুমোদন দেওয়া হয়। গতকাল মঙ্গলবার বিকেলে বিষয়টি জানাজানি হয়। নতুন কমিটির আহ্বায়ক ও সদস্যসচিব দুজনের বাড়ি নারায়ণগঞ্জ শহরের বাইরে।
নতুন কমিটিতে প্রথম যুগ্ম আহ্বায়ক করা হয়েছে আগের কমিটির সদস্যসচিব মামুন মাহমুদকে, আগের কমিটির ভারপ্রাপ্ত আহ্বায়ক মনিরুল ইসলামকে করা হয়েছে যুগ্ম আহ্বায়ক। এই পদে অন্যরা হলেন শহীদুল ইসলাম, খন্দকার মাসুকুল ইসলাম, লুৎফর রহমান, মোশারফ হোসেন ও জুয়েল আহমেদ।
এর আগে ২০২১ সালের ১ জানুয়ারি বিএনপির চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা তৈমুর আলম খন্দকারকে জেলা বিএনপির আহ্বায়ক এবং মামুন মাহমুদকে সদস্যসচিব করে ৪১ সদস্যবিশিষ্ট জেলা বিএনপির আহ্বায়ক কমিটি গঠন করা হয়। চলতি বছর নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের নির্বাচনে দলীয় সিদ্ধান্তের বাইরে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে অংশ নেন তৈমুর আলম খন্দকার। এর জেরে তাঁকে জেলা বিএনপির আহ্বায়ক পদ থেকে অব্যাহতি দিয়ে ভারপ্রাপ্ত আহ্বায়কের দায়িত্ব দেওয়া হয় প্রথম যুগ্ম আহ্বায়ক মনিরুল ইসলামকে। এর পর থেকে মনিরুল ভারপ্রাপ্ত আহ্বায়ক ও মামুন মাহমুদ সদস্যসচিব হিসেবে দায়িত্ব পালন করে আসছিলেন।
নিউজটি শেয়ার করুন...

Warning: A non-numeric value encountered in /home/narayang/public_html/wp-content/themes/Newspaper/includes/wp_booster/td_block.php on line 352