তক্কারমাঠ-নন্দলালপুর সড়কে অপরাধ বাড়ছে

25
আবদুর রহিমঃ  দিনে দিনে ভয়ংকর হয়ে উঠেছে ফতুল্লার স্টেডিয়াম-নন্দলালপুর সড়কটি। প্রায় সময়ই এই সড়কে ছিনতাইয়ের পাশাপাশি হত্যাকান্ডের ঘটনা সংগঠিত হচ্ছে। এক বছরের মধ্যে বেশ কয়েকটি হত্যাকান্ডের ঘটনা ঘটছে এই সড়কে। ব্যাটারী চালিত অটোরিকশা চালকরাই হচ্ছে অপরাধীদের প্রধান টার্গেট। সর্বশেষ হত্যাকান্ডের বলি হয়েছে কাশীপুর বাঁশমুলি এলাকার অটোরিকশা চালক মোঃ হাসান।
সূত্রমতে, পাল্লা দিয়ে বাড়ছে অটোরিকশা ছিনতাইয়ের ঘটনাও। আগে অস্ত্রের মুখে ইজিবাইক ছিনিয়ে নিলেও ইদানিং চালককে হত্যা করছে চক্রটি। আর এসব হত্যাকান্ডের নিরাপদ স্থান হিসেবে বেছে নেয়া হয়েছে ফতুল্লার তক্কারমাঠ-নন্দলালপুর সড়কটি।
আগে অস্ত্রের মুখে ইজিবাইক কিংবা ব্যাটারী চালিত অটোরিকশা ছিনিয়ে নিলেও ইদানীং চালককে হত্যা করে চলছে চক্রটি। নারায়ণগঞ্জের বেশ কয়েকটি এলাকায় এ ধরনের ঘটনা অব্যাহত বেড়ে চলায় মাঝে কিছুদিন অভিযান চালিয়েছিল জেলা পুলিশ। তবে অভিযান তৎপরতার মাঝেও থেমে নেই চক্রের সদস্যরা।
স্থানীয়রা জানায়, রাত বৃদ্ধির সাথে সাথে এই সড়কে মানুষ চলাচল কমে গিয়ে নিরবতা নেমে আসে। আর এ সুযোগটা কাজে লাগাচ্ছে অপরাধী চক্র। প্রায় সময়ই এই সড়কে ছিনতাইয়ের ঘটনা সংগঠিত হচ্ছে। এছাড়া ইজিবাইক চালকদের হত্যা করে ইজিবাইক নিয়ে যাওয়ার ঘটনা ঘটেই চলেছে। স্থানীয়দের অভিযোগ, এই সড়কে পুলিশের টহল নেই বললেই চলে। কিছু সময় পুলিশের গাড়ি দেখা গেলেও কোথাও থামতে দেখা যায় না।
অপরাধীদের কার্যক্রমের বর্ণনা দিয়ে পুলিশ সূত্র জানায়, মূলত সংঘবদ্ধ এসব চক্র রাতের আঁধারেই হত্যাকাণ্ডের মতো ঘটনা ঘটিয়ে থাকে। অধিক ভাড়ার আশায় রাত জেগে থাকা অটোচালকদের ইজিবাইকে চড়ে বসে চক্রটি। পরে নির্জন স্থানে নিয়ে তাকে পেছন থেকে ধারালো অস্ত্রে হত্যা করে তারা।
এছাড়া দিনের বেলা বিভিন্ন কৌশল ও ছদ্মবেশ ধারণ করে চালকদের বোকা বানিয়ে ছিনতাই করে থাকে চক্রটি। ক্রমাগত এসব ঘটনা বেড়ে যাওয়ার পাশাপাশি গ্রেফতারের ঘটনাও ঘটছে নিয়মিত। তবুও ছিনতাই চক্রের লাগাম টেনে ধরতে পারছেন না পুলিশ প্রশাসনের কর্তাব্যক্তিরা।
পুলিশ জানায়, শুক্রবার সকালে স্থানীয় লোকজন পিলকুনি মোল্লা বাড়ী মসজিদ সংলগ্ন ডোবায় একটি  লাশ দেখতে পেয়ে ৯৯৯ নাম্বারে ফোন করলে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে লাশটি উদ্ধার করে। পুলিশের ধারণা, বৃহস্পতিবার রাতের যে কোন সময়ে অজ্ঞাত দুর্বৃত্তরা তাঁকে হত্যা করে ডোবায় ফেলে রেখে গেছে। নিহতের পরনে জিন্স প্যান্ট ও গায়ে নীল রংয়ের ফতুয়া রয়েছে।
ঘটনাস্থলে যাওয়া ফতুল্লা মডেল থানার উপ-পরিদর্শক এসআই,শাহাদাত হোসেন জানান, লাশের গলায় কালো দাগ রয়েছে । বৃহস্পতিবার রাতে কোনো এক সময়ে দুর্বৃত্তরা তাঁকে হত্যা করে ডোবায় রেখে গেছে বলে ধারণা করা হচ্ছে। গত বছর আগস্টে ফতুল্লায় অজ্ঞাত দুর্বৃত্তদের ছুরিকাঘাতে লিটন নামে এক যুবক খুন হয়েছেন। রাত ১০টায় ফতুল্লা খান সাহেব ক্রিকেট স্টেডিয়ামের সামনে সড়কে এ ঘটনা ঘটে।
প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, লিটন (২৭) স্টেডিয়ামের কাছে সুপার স্টার বাল্ব কারখানায় শনিবার সকালে যোগদান করে ৬তলায় সকাল ৮টা থেকে রাত ১০টা পর্যন্ত কাজ করেছেন। কাজ শেষে কারখানা থেকে বের হয়ে বাসায় ফেরার পথে রাত সোয়া ১০টায় স্টেডিয়ামের সামনের সড়কে ৫/৬ জন যুবক লিটনকে ছুরিকাঘাত করে কাঠেরপুলের দিকে পালিয়ে যায়। লিটন হবিগঞ্জ জেলার আজমীরি থানার পাহাড়পুর গ্রামের গৌরমনির ছেলে।
একই গত ১৭ জুলাই ফতুল্লার পিলকুনি এলাকায় মোল্লাবাড়ির সামনের সড়কে আনোয়ার হোসেন (৪০) নামে এক ইজিবাইক চালককে হত্যা করে ইজিবাইক নিয়ে যায় অজ্ঞাত দূর্বৃত্তরা। নিহত আনোয়ার  চাঁদপুর জেলার কচুয়া থানার আশ্রাবপুর এলাকার আবুল হাশেম মজুমদারের ছেলে।
এ ব্যাপারে কুতুবপুর ৮ নং ওয়ার্ড মেম্বার ইমান আলী জানান, এই সড়কের অপরাধ দমনে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যদের তৎপরতা বৃদ্ধি করা প্রয়োজন।  অন্যথায় এমন অপরাধ অব্যাহত থাকবে।
ফতুল্লা মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা শেখ রিজাউল হক দিপু জানায়,  এই সড়কের  অপরাধ দমনে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যদের তৎপরতা জোরদার করা হয়েছে। আগামীতে এ ধরনের ঘটনার পুনরাবৃত্তি যেন না হয়।
নিউজটি শেয়ার করুন...

Warning: A non-numeric value encountered in /home/narayang/public_html/wp-content/themes/Newspaper/includes/wp_booster/td_block.php on line 352