মঙ্গলবার, ১৬ এপ্রিল ২০২৪, ০৪:৩৯ পূর্বাহ্ন

নারায়ণগঞ্জবাসীকে সু-সংবাদ দিলেন শামীম ওসমান

নারায়ণগঞ্জের খবর: নারায়ণগঞ্জ-৪ আসনের এমপি শামীম ওসমান বলেন, কারফিউ দিয়েও লাভ হবে না। লাঠি না নিয়ে নামলে মানুষকে ঘরে রাখা যাবে না। যতকিছুই দেয়া হোক লাভ হবে না। কারণ কারফিউ দিলে তো সেনাবাহিনীই নামবে। সেনাবাহিনী তো মাঠে আছেই, র‌্যাব-পুলিশ-বিজিবিও মাঠে। তারা একদিক দিয়ে টহল দিয়ে যাচ্ছে আরেকদিক দিয়ে মানুষ বের হয়ে যাচ্ছে। তাহলে এখন কি করা?

শামীম ওসমান বলেন, এই ব্যাপারে সাংবাদিকদের অংশগ্রহণ প্রয়োজন। তাহলে নির্বাচিত জনপ্রতিনিধি, রাজনৈতিক দল, পঞ্চায়েতকে নিয়ে এলাকায় এলাকায় সামাজিক দুরুত্ব বজায় রেখে আমরা ৫-৮-১০ জন স্বেচ্ছাসেবক দিয়ে টিম করে মাঠে নামাবো। কমিটিতে যারা থাকবে তাদের একটা আইডি কার্ড প্রশাসনের কাছে থাকবে। যাতে এই সুযোগে অন্য কেউ বদমাশি করতে না পারে। তাদের কাজ শুধু পাড়া মহল্লায় মানুষকে ঘর থেকে বের হতে বারন করা। এবং বের হলে যে কোন উপায়ে তাকে ঘরে ঢুকিয়ে দেয়া। আর কমিটিগুলোতে স্ব স্ব এলাকায় সাংবাদিকরা পর্যবেক্ষক হিসেবে থাকতে পারে। তাই আমি নারায়ণগঞ্জের সাংবাদিক সমাজের কাছে অনুরোধ জানাচ্ছি যে, আপনারা সবাই মিলে একটা সিদ্ধান্ত যদি আমাকে জানান তাহলে মানুষের মধ্যে সচেতনা বৃদ্ধি এবং তাদের ঘরে থাকতে বাধ্য করতে স্বেচ্ছাসেবী নামাবো। এছাড়া মানুষকে ঘরে রাখা কোনভাবেই সম্ভব না।

শামীম ওসমান আক্ষেপ করে বলেন, সিটি করপোরেশন এলাকায় অসুস্থ্য মানুষের স্যাম্পল কালেকশনের জন্য দায়িত্বপ্রাপ্তরা তা করছে না। উপায় না দেখে আমি দ্রুত নারায়ণগঞ্জে অবস্থিত বেসরকারি বড় বড় ৪টা ডায়াগনস্টিক সেন্টার পপুলার, ল্যাবএইড, মর্ডান ও মেডিনোভার সঙ্গে কথা বলেছি। স্যাম্পল কালেকশনের জন্য তারা আমাকে হাইকোয়ালিটির টেকনিশিয়ান দিচ্ছে এবং দুটি এ্যাম্বুলেন্স দিয়ে সহযোগিতা করার ঘোষনা দিয়েছে। আশা করি এখন আর স্যাস্পল কালেকশনে সমস্যা হবে না। এ জন্য আমি ৪টি প্রতিষ্ঠানসহ নারায়ণগঞ্জে ক্লিনিক ও ডায়াগনস্টিক মালিক সিমিতির সভাপতি ডা. শাহনেওয়াজ চৌধুরী, মেডিস্টারের মালিক মোফাজ্জল হোসেন মিন্টুসহ সবার কাছে কর্তৃজ্ঞাতা প্রকাশ করছি। তবে এখন জরুরী নারায়ণগঞ্জে একটা ল্যাব স্থাপন। কারণ নারায়ণগঞ্জের পরীক্ষাটা যেন নারায়ণগঞ্জেই হয়। তাহলে মানুষ কিছুটা স্বস্থি পাবে।

নারায়ণগঞ্জের মিডিয়ার কাছে পরামর্শ এবং সাজেশন চেয়েছেন শামীম ওসমান বলেন, প্রেসক্লাব, সাংবাদিক ইউনিয়ন, সকল লোকাল এবং জাতীয় মিডিয়ার কাছে আমার প্রশ্ন এই সময়ে আমার কী করণীয়। যদি করণীয় হয়ে থাকে সেখানে পর্যবেক্ষক হিসেবে মিডিয়ার অংশগ্রহণ থাকবে কি না? কারণ এখানে যখন বল প্রয়োগ হবে, শক্ত আচরণ হবে, এটা নিয়ে যদি কেউ নেভেটিভ নিউজ প্রকাশ করে দেন তাহলে যারা স্বেচ্ছাসেবক হিসেবে কাজ করবে তারা মানসিকভাবে ভেঙ্গে পড়বে। সেই কারণে সাংবাদিক সমাজের অংশগ্রহন প্রয়োজন। তাছাড়া নারায়ণগঞ্জের সাংবাদিকরা জীবনের ঝুঁকি নিয়ে দুর্যোগের এই সময়ে যথেষ্ট ভুমিকা রাখছেন, আমি সাংবাদিক সমাজের প্রতি কতৃজ্ঞতা প্রকাশ করছি। আপনারা বিষয়গুলো তুলে ধরছেন বিধায় আমরা জানতে পারছি। এইখানে আপনারা একটু অংশগ্রহন করলে কতৃজ্ঞতার চিত্তে নারায়গঞ্জবাসী আপনাদের অবদানের কথা মনে রাখবে।

শামীম ওসমান বলেন, সরকারী সাহায্য আসছে সেটা সরকারী লোকজন বিতরণ করছে। আমি আমারটা করছি। কারণ সরকারী সাহায্যের বাইরেও আমার সাহায্য দেয়ার ক্ষমতা আছে। আমি করছি। কারণ এখনই পরীক্ষা দেয়ার সময়। বিপদে পড়লে মানুষ যদি আমাকে কাছে না পায় তাহলে কিসের জন্য কার জন্য রাজনীতি করি। তার চেয়ে বড় কথা হলো-এখন এই দুর্যোগময় পরিস্থিতিতে যা করছি আল্লাহ রাব্বুল আলামিনকে খুশি করার জন্য করছি।

নিউজটি শেয়ার করুন...

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Recent Comments

    © All rights reserved © 2023
    Design & Developed BY M Host BD