বৃহস্পতিবার, ২৫ জুলাই ২০২৪, ০৯:০৪ পূর্বাহ্ন

ফতুল্লায় শ্বশুর-শাশুড়িকে কুপিয়ে হত্যার চেষ্টা

নিজস্ব প্রতিবেদক  নারায়ণগঞ্জের ফতুল্লায় পাঁচ তলা বাড়ি লিখে না দেয়ায় স্ত্রী ও শ্বশুর শাশুড়িকে কুপিয়ে হত্যার চেষ্টা করেছেন এক ঘর-জামাই। বৃহস্পতিবার দিবাগত রাত ৩টায় ফতুল্লার কাশিপুর মধ্যপাড়া এলাকায় হাসিনা জাহান কাকলী ও আলমগীর হোসেন দম্পতির বাড়িতে এঘটনা ঘটে। শাশুড়ি হাসিনা জাহান কাকলী এ ব্যাপারে ফতুল্লা থানায় অভিযোগ দায়ের করলেও গত ৩ দিন ধরে মামলা না নিয়ে তদন্ত করছে পুলিশ।

হাসিনা জাহান কাকলী অভিযোগে উল্লেখ করেন, ২০১৭ সালের ১৪ই জুলাই তাদের একমাত্র মেয়ে আফরোজা আলম ছোয়াকে একই ফতুল্লার দেলপাড়া এলাকার ওয়াদুদ মোল্লার ছেলে আবুল হাসনাতের কাছে বিয়ে দেয়। বিয়ের ৭ দিন পর থেকে ছোয়াকে পাঁচ লাখ টাকা যৌতুক এবং পাঁচ তলা বাড়ী লিখে দেওয়ার জন্য মানসিক ও শারীরিক চাপ সৃষ্টি করে আসছে আবুল হাসনাত। এবিষয়ে প্রতিবাদ করলে আবুল হাসনাতের সঙ্গে তার বোন ওবায়দা খানমও মারধর করতো। ছোয়া গর্ভবর্তী থাকা কালীন সময়ও একাধীক বার স্বামী ও ননদ তাকে মারধর করেছে। আর সামনে দাড়িয়ে শশুর শ্বাশুড়ি দেখেও কোন প্রতিবাদ না করে উল্টো ছোয়াকে গালাগাল করতো। ২০১৯ সালের ২৩ অক্টোবর ছোয়া একটি কন্যা সন্তান জন্ম দেয়। এরপর থেকে নির্যাতনের মাত্রা আরো বাড়িয়ে দেয়। এক পর্যায়ে নির্যাতন সহ্য করতে না পেয়ে ছোয়া শিশু কন্যাকে বুকে নিয়ে এক কাপড়ে বাবার বাড়ি চলে আসে। এরপর দেনদরবারের এক পর্যায়ে আবুল হাসনাত অঙ্গিকার করেন ছোয়াকে আর নির্যাতন করবে না। এখন থেকে শশুর বাড়িতেই থাকবে। এতে শশুর দুতলায় একটি ফ্ল্যাট তাদের জন্য দিয়ে দেয়। এ ফ্ল্যাটেই জানুয়ারী থেকে তারা বসবাস করছে। এখানেও আবুল হাসনাত তার মা বাবা ও বোনকে নিয়ে আসতো। এরমধ্যে গত বৃহস্পতিবার রাত ৩টায় দাবীকৃত যৌতুক ও বাড়ি লিখে না দেয়া নিয়ে স্বামী স্ত্রীর মধ্যে ঝগড়া হয়। তখন আবুল হাসনাত ছোয়াকে অনেক মারধর করে। এসময় চিৎকার শুনে ছোয়ার বাবা ও মা এসে ঝগড়ার কারন জানতে চাইলে তাদের অকথ্য ভাষায় গালাগাল করে আবুল হাসনাত। এতে প্রতিবাদ করলে রান্না ঘর থেকে বটি এনে শ্বাশুরীর মাথায় কোপ দেয়। তখন বাম হাত উঠিয়ে কোপ ঠেকায়। এসময় বাম হাতের অনেকটা অংশ কেটে যায়। ঘটনাটি তাৎক্ষনিক ভিন্ন দিকে নিতে বেøড দিয়ে নিজ হাতে কয়েকটি পোচ দিয়ে স্ত্রী ও শশুর শ্বাশুরীকে হুমকি দিয়ে বলেন যদি থানা পুলিশের কাছে জানাও তাহলে তোমাদের বিরুদ্ধেও মামলা দিবো। ওইসময় চিৎকার শুনে আশপাশের লোকজন এসে তাদের শান্ত করে।

এঘটনায় ছোয়ার মা হাসিনা জাহান কাকলী আবুল হাসনাতের বাবা মা ও বোনকে জানালে তারা উল্টো হুমকি দিয়ে বলেন জামাইকে বাড়ি লিখে দিতে সমস্যা কি সমস্যা থাকলে মেয়েকে বিচ্ছেদ করিয়ে নেন। এরপর শুক্রবার সকালে হাসিনা জাহান কাকলী বাদি হয়ে আবুল হাসনাত তার বাবা মা ও বোনের বিরুদ্ধে ফতুল্লা মডেল থানায় অভিযোগ করেন।এবিষয়ে ফতুল্লা মডেল থানার ওসি আসলাম হোসেন জানান, ঘটনাটি তদন্তের জন্য একজন উপ-পরিদর্শকের সঙ্গে একজন পরিদর্শকও মাঠে রয়েছে। তদন্ত শেষে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

নিউজটি শেয়ার করুন...

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Recent Comments

    © All rights reserved © 2023
    Design & Developed BY M Host BD