বুধবার, ২২ মে ২০২৪, ০৩:৫৬ অপরাহ্ন

স্কুলছাত্রীর ফিরে আসা নিয়ে হাইকোর্টে মামলা

নারায়ণগঞ্জের খবর ডেস্ক: নারায়ণগঞ্জে ধর্ষণ ও হত্যার শিকার স্কুলছাত্রীর লাশ নদীতে ফেলে দেয়ার ৪৯ দিন পর জীবিত ফেরত আসার ঘটনায় হাইকোর্টে রিভিশন মামলা দায়ের করেছেন পাঁচ আইনজীবী। আবেদনে নারায়ণগঞ্জ সদর মডেল থানায় করা মামলা এবং মামলা পরবর্তী প্রক্রিয়ার শুদ্ধতা, বৈধতা এবং যৌক্তিকতা সম্পর্কে প্রশ্ন তোলা হয়েছে। এছাড়া ওই মামলার নথি তলবেরও আবেদন করা হয়েছে। বিষয়টি জাগো নিউজকে নিশ্চিত করেন আইনজীবী মুহাম্মদ শিশির মনির ও আসাদ উদ্দিন।

‘ধর্ষণের পর নদীতে লাশ ফেলে দেয়া স্কুলছাত্রীর ৪৯ দিন পর জীবিত প্রত্যাবর্তন’ শীর্ষক শিরোনামে বিভিন্ন গণমাধ্যমে প্রকাশিত সংবাদ সংযুক্ত করে মঙ্গলবার (২৫ আগস্ট) হাইকোর্টের সংশ্লিষ্ট শাখায় পাঁচজন আইনজীবীর পক্ষে অ্যাডভোকেট মোহাম্মদ শিশির মনির রিভিশনটি দায়ের করেন।পাঁচজন আইনজীবী হলেন মো. আসাদ উদ্দিন, মো. জোবায়েদুর রহমান, মো. আশরাফুল ইসলাম, মো. আল রেজা আমির এবং মো. মিসবাহ উদ্দিন।এর আগে সোমবার ২৪ আগস্ট ‘ধর্ষণের পর নদীতে লাশ ফেলে দেয়া স্কুল ছাত্রীর ৪৯ দিন পর জীবিত প্রত্যাবর্তন’ শীর্ষক শিরোনামে একটি জাতীয় দৈনিকে প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়। ওই প্রতিবেদন আইনজীবী মোহাম্মদ শিশির মনির ওই দিনই সোমবার ২৪ আগস্ট হাইকোর্টের বিচারপতি এম. ইনায়েতুর রহিম এবং বিচারপতি মো. মোস্তাফিজুর রহমানের সমন্বয়ে গঠিত বেঞ্চের দৃষ্টি আকর্ষণ করে নজরে আনার জন্যে উপস্থাপন করেন।তখন আদালত আইনজীবী শিশির মনিরকে এ বিষয়ে লিখিত আবেদন করতে বলেন।

শিশির মনির জানান, তারই পরিপ্রেক্ষিতে ২৫ আগস্ট হাইকোর্টে একটি রিভিশন মামলা দায়ের করা হয়েছে।ঘটনার বিবরণে জানা যায়, নারায়ণগঞ্জ শহরের দেওভোগ পাক্কা রোড এলাকার স্কুলছাত্রী গত ৪ জুলাই নিখোঁজ হয়। বিভিন্ন স্থানে খোঁজাখুঁজির পর ১৭ জুলাই সদর মডেল থানায় একটি জিডি করেন স্কুলছাত্রীর বাবা। এক মাস পর ৬ আগস্ট একই থানায় স্কুলছাত্রীর বাবা অপহরণ মামলা করেন। মামলায় প্রধান আসামি করা হয় বন্দর উপজেলার বুরুন্ডি খলিলনগর এলাকার আমজাদ হোসেনের ছেলে আব্দুল্লাহ (২২) ও তার বন্ধু বুরুন্ডি পশ্চিমপাড়া এলাকার সামসুদ্দিনের ছেলে রকিবকে (১৯)। ওই দিনই তাদের গ্রেফতার করা হয়। একই ঘটনায় দুইদিন পর গ্রেফতার করা হয় বন্দরের একরামপুর ইস্পাহানি এলাকার বাসিন্দা নৌকার মাঝি খলিলকে (৩৬)।

গত ৯ আগস্ট পুলিশ জানায়, স্কুলছাত্রীকে গণধর্ষণের পর হত্যা করে মরদেহ নদীতে ভাসিয়ে দেয় আসামিরা। তারা আদালতে ১৬৪ ধারায় এ ঘটনা স্বীকার করে জবানবন্দি দিয়েছে। অথচ ২৩ আগস্ট দুপুরে বন্দরের নবীগঞ্জ রেললাইন এলাকায় সুস্থ অবস্থায় পাওয়া যায় নিখোঁজ স্কুলছাত্রীকে। সে নিজে তার মাকে একটি ফোন ফ্যাক্সের দোকান থেকে কল করে চার হাজার টাকা চায়! বাবা-মা এতে অবাক হয়ে মামলার তদন্ত কর্মকর্তাকে বিষয়টি জানান। পরে স্কুলছাত্রীকে নিয়ে তারা থানায় হাজির হন। তাদের সঙ্গে ছিল কিশোরীর স্বামী ইব্রাহিম। তাকে জীবিত অবস্থায় পাওয়ায় তোলপাড় সৃষ্টি হয়। পুলিশের তদন্ত ও আদালতে দেয়া জবানবন্দিও প্রশ্নবিদ্ধ হয়।কিশোরীর বাবা বলেন, রোববার দুপুরে মেয়ে তার মায়ের কাছে টাকা পাঠাতে বলে ফোন করেন। তখন তারা বিষয়টি নারায়ণগঞ্জ সদর থানাকে জানান। থানার উপপরিদর্শক (এসআই) শামীমের পরামর্শে তিনি বন্দর উপজেলার একটি দোকানের সামনে মেয়েকে আসতে বলেন। তখন মেয়েকে পুলিশ উদ্ধার করে।নারায়ণগঞ্জ সদর থানার ওসি আসাদুজ্জামান সোমবার (২৪ আগস্ট) জানিয়েছিলেন, ওই তিন আসামির জবানবন্দিতে ঘটনার বর্ণনা একই রকম ছিল। আসামিরা একে অপরকে শনাক্তও করেছেন। তারা যে মেয়েকে ধর্ষণের পর হত্যা করা হয়েছে বলে স্বীকার করেছেন, সেই মেয়ে জীবিত আছে। তাহলে তারা স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিলেন কেন? তারা অন্য কোনো মেয়ের সঙ্গে এমনটা করেছেন কিনা তা রিমান্ডে নিয়ে আবার জিজ্ঞাসাবাদ করা হবে। আর ওই কিশোরীকে আদালতে সোপর্দ করা হবে।

নিউজটি শেয়ার করুন...

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Recent Comments

    © All rights reserved © 2023
    Design & Developed BY M Host BD